Tuesday, August 20, 2019

প্রবল বর্ষণে প্লাবিত দিল্লি সহ ভারতের বিভিন্ন প্রান্ত।



প্রবল বর্ষণে উত্তর ভারতের একাধিক রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫৮ জনের। পাঞ্জাব, হিমাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ডে ধসে বহু পর্যটক আটকে রয়েছেন। প্রবল বর্ষণের কারণে উদ্ধারকাজ করা যাচ্ছে না। পাঞ্জাব, হরিয়ানা ও হিমাচল প্রদেশে আগামী ২৪ ঘণ্টা প্রবল বর্ষণের সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর।

 পাঞ্জাবের পাঠানকোট, রোপর এবং লুধিয়ানার অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। একাধিক এলাকা জলের তলায় চলে গিয়েছে। বিশেষ করে এই তিন জেলার গ্রামাঞ্চলের অবস্থা অত্যন্ত সংকটজনক। অসংখ্যমানু বানভাসী। তাঁদের উদ্ধার কাজ শুরু করেছে বিপর্যয় মোকাবিলা বিহিনী। পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘোষণা করে ১০০ কোটি টাকা আর্থিক সাহায্যের কথা ঘোষণা করেছে। উত্তরাখণ্ডে টানা বর্ষণে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। পার্বত্য এলাকা হওয়ায় এই রাজ্যের অধিকংশ এলাকাই ধস প্রবণ।

 কয়েকদিন আগেই উত্তরকাশীতে মেঘ ভাঙা বৃষ্টিতে বিপুল বিপর্যয় হয়েছে। একাধিক জায়গায় ধস নেমে রাস্তা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। একাধিক গ্রামীণ এলাকার মানুষ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে রয়েছেন। উত্তরাখণ্ডে এখনও পর্যন্ত ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিখোঁজ আট জন। অন্যদিকে হিমাচল প্রদেশের অবস্থাও যথেষ্ট উদ্বেগজনক। লাগাতার বৃষ্টিতে পার্বত্য রাজ্যের একাধিক জায়গায় ধস নেমেছে। রাস্তা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এখনও ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে এই রাজ্যে। দিল্লিতে খোলা হয়েছে ২১২০টি ত্রাণ শিবির।

কারণ যমুনা নদীর তীরে এবং নীচু এলাকায় প্রায় ২৩,৮১৬ জন বসবাস করেন। ৩০টি বিপজ্জনক এলাকা চিহ্নিত করে উদ্ধার কাজের জন্য ৫৩টি বোট মজুত রাখা হয়েছে। যমুনা নদীর উপরে থাকা লোহা পুলের যান চলাচল গতকাল থেকেই বন্ধ করে দিয়েছে দিল্লির ট্রাফিক পুলিস। পরিস্থিতির উপর কড়া নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল।   

No comments:

Post a Comment